বিনোদনসেরা খবর

“আন্টি, আমি ঘুমাতে পারছি না”, অমিতাভের এই কথা শুনে কেঁদে ফেলেছিলেন স্বয়ং ইন্দিরা গান্ধী!

বলিউড অভিনেতা তথা সুপারস্টার অমিতাভ বচ্চন(Amitabh Bachchan) তার দীর্ঘদিনের ক্যারিয়ারে অসংখ্য সুপারহিট সিনেমা দর্শকদের উপহার দিয়েছেন। শুধু দেশেই নয়, বিদেশেও তার অনুগামীর সংখ্যা নেহাত কম নয়। আর তাই অমিতাভ বচ্চনের জীবনের নানা কাহিনী সম্পর্কে জানতে সবসময় আগ্রহী থাকেন ভক্তরা। আজকে এই প্রতিবেদনে অভিনেতার জীবনের এমন একটি কাহিনী তুলে ধরব, যেটা হয়তো অনেকেই জানেন না। আর এই কাহিনীর সঙ্গে যুক্ত ছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী।

তাহলে পুরো ঘটনাটা এবার খোলসা করে বলা যাক। অমিতাভ বচ্চন তার সুপারহিট ছবি ‘কুলি’ করার সময় একটি বড়সড় দুর্ঘটনার কবলে পড়েন। এই দুর্ঘটনার কারণে তার জীবনটা চলে যেতে পারত। অভিনেতার পেটে খুব জোর আঘাত লাগে। এর জেরে তার অন্ত্র মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেইসময় খুব দ্রুত তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখান থেকে জানা, যায় তার অন্ত্র ফেটে গিয়েছিল। সেইসময় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর তার ছেলের সঙ্গে আমেরিকায় ছিলেন।

তিনি এই দুর্ঘটনার কথা জানতে পেরে ছেলে রাজীব গান্ধীকে ভারতে পাঠিয়ে দেন এবং অমিতাভের পরিবারের পাশে থাকার জন্য বলেছিলেন। তিনি নিজেও দেশে ফিরে এসে অমিতাভ বচ্চনকে দেখতে গিয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রীকে দেখামাত্রই অমিতাভ কেঁদে ফেলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘আন্টি আমি ঘুমাতে পারছি না।’ এই কথা শুনে ইন্দিরা গান্ধী নিজেও কেঁদে ফেলে তাকে সান্ত্বনা দিয়ে বলেছিলেন, ‘আমিও মাঝে মাঝে ঘুমাতে পারিনা। এতে চিন্তার কিছুই নেই।’

সেসময় চিকিৎসকরা বলেছিলেন তিনি হয়তো আর কখনোই ঠিক হবেন না। কিছুক্ষণ পর কোমায় চলে যেতে পারেন। চিকিৎসকরা তাকে ‘ক্লিনিক্যালি ডেড’ বলেও ঘোষণা করেছিলেন। যদিও এই সমস্ত কিছুই ইন্দিরা গান্ধীর লেখা একটি বই থেকে পাওয়া গিয়েছে। যদিও এই দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে অমিতাভ নিজেই বলেছিলেন, ‘আমি কোমায় চলে গিয়েছিলাম। আমাকে জরুরি অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। আবার অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল। সেইসময় ১৪ ঘণ্টা আবার কোন জ্ঞান ছিল না। আমার প্রেসার শূন্য হয়ে গিয়েছিল।’

Related Articles

Back to top button