বিনোদনসেরা খবর

‘নোংরা এবং নিম্নমানের মানুষরাই ছবি বয়কট করছে’, বয়কট ট্রেন্ড নিয়ে দর্শকদের একহাত নিলেন বাবুল সুপ্রিয়

‘হ্যাশট্যাগ বয়কট বলিউড’-এর ট্রেন্ডে জেরবার বলিউড, এবার সেই ছোঁয়া এসে লেগেছে বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতেও। একের পর এক বাংলা ছবি বয়কটের ডাক দিচ্ছে নেটপাড়া। প্রথমে রাজ চক্রবর্তীর ধর্মযুদ্ধ তারপর ইন্দ্রদীপ দাশগুপ্তের বিসমিল্লা। আর এবার সেই তালিকায় নতুন সংযোজন কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘লক্ষ্মী ছেলে’।

এই ছবিতে অভিনয় করেছেন তৃণমূল নেতা বাবুল সুপ্রিয়, যিনি ছবিতে একজন সৎ রাজনীতিবিদের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। টলিউডের এই বয়কট কালচারে ইতিমধ্যেই বিরক্তি প্রকাশ করেছেন পরিচালক রাজ চক্রবর্তী, ঋদ্ধি সেন। এবার এই প্রসঙ্গে মুখ খুললেন বাবুল সুপ্রিয়ও। মিডিয়ার সামনে উগরে দিলেন তীব্র ক্ষোভ।

সম্প্রতি দক্ষিণ কলকাতার এক অভিজাত রেস্টুরেন্টে গোটা টিমের সাথে উপস্থিত ছিলেন বাবুল। বয়কট ট্রেন্ড নিয়ে তাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “বয়কট ট্রেন্ড অত্যন্ত জঘন্য কারণ বলিউড বা ভারতীয় চলচ্চিত্র মানুষকে বিনোদন যুগিয়ে এসেছে। আমি দর্শকদের অনুরোধ করব তারা যেন এটা বোঝে যে বয়কট ট্রেন্ড টাকার বিনিময়ে ইচ্ছাকৃত ভাবে করা হয়েছে।”

প্রসঙ্গত, এই মুহূর্তে বড়ো বাজেট, বড়ো স্টার কোনোকিছুই বয়কটের হাত থেকে বাঁচাতে পারছেনা ভারতীয় ছবিগুলিকে। যদিও অধিকাংশ দর্শক বলছেন এরজন্য নাকি খোদ ইন্ডাস্ট্রিই দায়ি। গা ছাড়া মনোভাব, যেমন খুশি বিকৃত কন্টেন্ট আর ভারতীয় সংস্কৃতির অবমাননা করারই প্রতিদান মিলছে এবার।

বিশেষ করে ইন্ডাস্ট্রিগুলি যদি নিজেদের হিন্দু বিরোধী প্রবণতা থেকে না বেরিয়ে আসে তাহলে এভাবেই একের পর এক ছবি ফ্লপ হবে বলেই ধারণা সাধারণ মানুষের। যদিও রাজনিতীবিদ অভিনেতা বাবুল সুপ্রিয় এই দায়ভার দর্শকদের উপরেই চাপাতে মরিয়া। তিনি বলেন, ‘বয়কট ট্রেন্ড অত্যন্ত নোংরা এবং নিম্ন মানের চিন্তাধারা থেকে শুরু হয়েছে’।

তবে তার এরকম রূঢ় প্রতিক্রিয়ার প্রভাব ‘লক্ষ্মী ছেলে’র উপর কীভাবে পড়ে সেটাই দেখার। ইতিমধ্যেই নেতিবাচক মন্তব্য শুরু হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। নেটিজেনদের বক্তব্য, ‘ইঁট ছুড়লে পাটকেল তো খেতেই হবে’। একজন তো লিখেছেন, ‘ইন্ডাস্ট্রি বয়কট ট্রেন্ডকে হালকা ভাবে নিয়েছিলো। এখন তার ভয়াবহতা দেখে কূল হারিয়েছে’। সাধারণ মানুষের উপর দোষ না চাপিয়ে ইন্ডাস্ট্রির নিজেদের ভুল ত্রুটিকে শোধরানো উচিত, এমনটাই পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

Related Articles

Back to top button