অন্যান্যসেরা খবর

প্লাস্টিকের বোতলের গায়ে থাকা ত্রিকোণ চিহ্নের মানে কী? এর পেছনের কারণ অনেকেরই অজানা

বর্তমান দিনে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি অপরিহার্য উপাদান হল প্লাস্টিক। অথচ এই প্লাস্টিক কিন্তু আমাদের শরীর এবং পরিবেশ দুইয়ের জন্যই ক্ষতিকর। এমতাবস্থায় আমরা অনেকেই প্লাস্টিকের বোতলকে পুনরায় ব্যবহার করে থাকি। এই বোতলগুলিকে না ফেলে জল বা তেল রাখার কাজে লাগাই আমরা। কিন্তু জানেন কি, এইভাবে প্লাস্টিকের জিনিসে পানীয় বা তেল রাখা খুবই ক্ষতিকর।

অনেক সময় বিস্তারিত না জেনেই এই ভুলগুলি আমরা করে ফেলি। তবে এই ভুলগুলি শুধরে নেওয়ার একটি সহজ উপায় রয়েছে। যদি ভাল করে দেখেন তো দেখতে পাবেন, প্লাস্টিকের গায়ে একটি ত্রিকোণ চিহ্ন আঁকা থাকে। এর মানে জানলে আপনিও বুঝতে পারবেন কোন বোতলে কতটা ক্ষতি হচ্ছে আমাদের। ত্রিকোণ চিহ্ন থাকা মানে নিশ্চিত হতে পারেন, যে প্লাস্টিকের বোতলটি বিধিসম্মত ভাবে তৈরি হয়েছে। তবে এর ভেতরে যে নম্বর থাকে তার অর্থ কী?

নম্বর যখন ১ : পিইইটি বা পিইটি ১ অর্থাৎ পলিইথিলিন টেরিপথ্যালিট। অর্থাৎ এগুলি মাত্র একবারই ব্যবহার করার যোগ্য। পাশাপাশি এগুলি গরম করা উচিত নয়। এতে একধরণের বিষাক্ত তরল বা অ্যান্টিমনি নির্গত হয় যা মারাত্বক ক্ষতিকর।

নম্বর যখন ২ : বোতলের গায়ে ২ লেখা আছে মানে তা
হাই ডেনসিটি পলিথিলিন। এটা মূলত রিসাইকেল করা বা পুনর্ব্যবহৃত প্লাস্টিক। এগুলো তুলনামূলক সেফ, সাধারণ তাপমাত্রায় বিশেষ কোন ক্ষতি হয়না।

নম্বর যখন ৩ : পলিভিনাইল ক্লোরাইড বা পিভিসির নাম আমরা অনেকেই শুনেছি। অক্সিডেশন হয়না বলে এটা সহজে নষ্ট হয়না। খেলনা, জলের পাইপ, ডিটারজেন্টের বোতল ইত্যাদি কাজে ব্যবহার করা হলেও এতে খাবার বা পানীয় না রাখাই ভাল।

নম্বর যখন ৪ : লো ডেনসিটি পলিথিলিন– এটি বাকি তিনটির চেয়ে কম ক্ষতিকর হলেও সবসময় রিসাইকেল করা যায়না। ময়লা ফেলার প্লাস্টিক, জামা কাপড়ের মোড়ক, খাবারদাবারের প্লাস্টিকের মতো জিনিসে এগুলি ব্যবহার করা হয়। তবে এটিও বারবার ইউজ না করাই ভালো।

নম্বর যখন ৫ : এটিকে তুলনামূলক সুরক্ষিত ধরা হয়। পলিপ্রোপিলন এই প্লাস্টিকে মূলত সস বা অন্য খাবারের স্যাশে, দই বা চিজের প্যকেজিং, স্যানিটারি প্যাড ইত্যাদি কাজে ব্যবহার করা হয়। এগুলি রিসাইকেল করাও যায় আবার মাইক্রোওয়েভেও ব্যবহার করা যায়।

নম্বর যখন ৬ : পলিস্টিরিন নামক এই প্লাস্টিকে মূলত রেস্তোরাঁর টেকআওয়ে খাবারের প্যাকেট, ডিসপোজিব্‌ল থালা বাটি, চামচের মতো বহু জিনিস তৈরি হয়। আবার এই প্লাস্টিক থেকেই ক্যান্সার হওয়ার চান্স প্রবল। তাই রেস্টুরেন্ট থেকে আসা প্লাস্টিকের বাটি এখনই ফেলে দিন।

নম্বর যখন ৭ : কম্পিউটার, ল্যাপটপ, আইপ়ড, সানগ্লাসের, ২০ লিটারের মিনারেল ওয়াটারের পাত্র ইত্যাদি তৈরিতে ব্যবহার হয় পলিকার্বোনেট প্লাস্টিক। এই প্লাস্টিক এতটাই ক্ষতিকর যে, মাতৃগর্ভে থাকা ভ্রুনেরও ক্ষতি করতে পারে। এমনকি গবেষণা বলছে হৃদ্‌রোগ, ক্যানসার, এবং বন্ধ্যাত্বের মতো বেশ কিছু সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে এই প্লাস্টিক।

Related Articles

Back to top button