বিনোদনসেরা খবর

‘আবেগকে দাবিয়ে রাখা অসম্ভব’, ৩ বার বিয়ের পর নিজের অভিজ্ঞতা থেকে পরামর্শ শ্রাবন্তীর

সেই কোন ছোটবেলায় পা রেখেছিলেন ইন্ডাস্ট্রিতে। ‘মায়ার বাঁধন’ ছবিতে প্রসেনজিতের মেয়ের চরিত্র থেকে শুরু করে জিৎ, দেব, হিরণ প্রত্যেকের সাথেই চুটিয়ে কাজ করছেন এই অভিনেত্রী। আজ আমরা কথা বলছি বাংলা ইন্ডাস্ট্রির বহুল সমালোচিত অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চ্যাটার্জীর (Srabanti Chatterjee) কথা‌। তার কাজের চেয়ে ব্যক্তিগত জীবনেই বেশি আগ্রহ নেটিজেনদের।

শ্রাবন্তীর একাধিক বিয়ে, ডিভোর্স, প্রেম নিয়ে হাজারো গুঞ্জন ভাসে টলিপাড়ার আকাশে বাতাসে। তবে বিগত কয়েকদিনে দারুন আকর্ষণীয় এবং বোল্ড অবতারে নিজেকে মেলে ধরেছেন তিনি। তারপর থেকেই সমালোচকদের কটাক্ষ বানীতে ভরপুর অভিনেত্রীর সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টের কমেন্ট বক্স। কিন্তু এসব নিয়ে যে তিনি একেবারেই ভাবিত নন, তা আবারও বুঝিয়ে দিলেন এক সাম্প্রতিক সাক্ষাৎকারে।

কিছুদিন আগেই এক সাক্ষাৎকারে নিজের ব্যক্তিগত মতামত নিয়ে মুখ খুললেন টলি ডিভা শ্রাবন্তী। নিজের ব্যক্তিগত জীবনের ‘পোস্টমর্টেম’ করা নিয়ে মন্তব্য করেন অভিনেত্রী। এইদিন তাকে প্রশ্ন করা হয়, শ্রাবন্তী কি এই ট্রোল, কটাক্ষ এসবের কোনো উত্তরই দিতে চায়না? এর জবাবে বেশ চাঁচাছোলা উত্তরই দিলেন অভিনেত্রী।

শ্রাবন্তীর কথায়, ‘আমার ভাল লাগে না। ওরা আমায় নিয়ে কথা বলে আনন্দ পাচ্ছে। তবে আমি তাদের বিনোদন জোগাচ্ছি! তা ছাড়া এই সব করে অনেকে রোজগারও করেন! বিশ্বাস করুন, আমার একটুও গায়ে লাগে না। আবার এমন অনেকেই রয়েছেন যারা আমায় সমর্থনও করেন। সেটাও তো দেখা উচিত। আমি কাউকে জাজ করি না।’

এছাড়াও আরো বেশ কয়েকটি বিষয়ে নিজের মতামত জাহির করেন অভিনেত্রী। নবাগত তারকাদের বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, ‘সময়ের সঙ্গে সঙ্গে অনেক কিছুর পরিবর্তন হয়। এখন তো ‘ওটিটি’র যুগ। আমরা যখন শুরু করেছি, তখন প্রেক্ষাগৃহে গেলে উপচে পড়ত ভিড়। এখন মাচায় যেমনটা হয়। এখন দর্শকের স্বাদ পরিবর্তন হয়েছে। তাই সেই ভাবে ‘নায়ক-নায়িকা’র ভেদাভেদটা দিনে দিনে মুছে যাচ্ছে।’

এর সাথে নিজের ব্যক্তিগত জীবনে চলা চড়াই উৎরাই সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এতগুলো বছরের কেরিয়ার আমায় শিখিয়েছে ধৈর্য ধরতে। আর শিখেছি কোনও ব্যক্তিগত সমস্যাকে কখনও শুটিং ফ্লোরে আনা যাবে না। তা হলেই ক্যামেরা আমার মনে কী চলছে ধরে ফেলবে। নিজের সমস্যাকে গোপন করা খুব কঠিন। আবেগকে লুকিয়ে রাখা ভীষণ কঠিন।’

Related Articles

Back to top button