বিনোদনসেরা খবর

‘ডাক্তারি ছাত্রীকেও ঝগড়ায় নামিয়ে দিলেন’, ‘এক্কা দোক্কা’র গল্প দেখে লীনা গাঙ্গুলীকে বয়কট করার দাবি নেটিজেনদের

বাংলা সিরিয়াল (Bengali Mega Serial) লেখিকা লীনা গাঙ্গুলিকে (Leena Ganguly) নিয়ে সমালোচনার শেষ নেই। আসলে তাকে নিয়ে যতটা না চর্চা হয় তার চেয়ে বেশি চর্চা হয় তার চিত্রনাট্য নিয়ে। আজকের আধুনিক দিনে দাঁড়িয়ে সেই পুরনো দিনের বস্তাপচা কূটকচালি দেখতে মোটেও রাজি নয় দর্শকরা। আর লীনা গাঙ্গুলী কার্যত সেটাই দেখিয়ে চলেছে।

আসলে স্টার জলসার ধারাবাহিক ‘এক্কা দোক্কা’তে দেখানো হচ্ছে যে, বিয়ের পর শশুরবাড়ি এসেছে রাধিকা। আর বাড়িতে পা রাখা মাত্রই অপমান আর লাঞ্ছনায় জর্জরিত করা হচ্ছে তাকে। অথচ রাধিকা যে নাকি একজন ডাক্তারি পড়ুয়া, সেও নিজের সমস্ত পড়াশোনা ছেড়ে সংসারের কূটকচালিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।

আসলে ধারাবাহিকের গল্প অনুযায়ী, রাধিকার পরিবারের সঙ্গে অবশ্য পোখরাজদের পরিবারের বহু পুরনো শত্রুতা। আর সেই কারণেই পোখরাজের পরিবারের প্রতিটি সদস্যই রাধিকার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করতে লেগেছে। কখনও কেউ তার কপাল ফাঁটিয়ে দিচ্ছে তো কখনও আবার রাধিকার তৈরি করা খাবার নষ্ট করে দিচ্ছে সবাই‌।

এত সমস্যার পরেও বৌভাতের অনুষ্ঠানের জন্য তার দুই ননদের কাছেই সাজতে বসতে হয়। তারা তাকে এমনই খারাপভাবে সাজায় যে অতিথিদের সামনে লজ্জায় পড়ে যায় রাধিকা। আর তারপর থেকেই শুরু হয়েছে সমালোচনা। আসলে রাধিকার মতো একটি উচ্চশিক্ষিতা ডাক্তারি পড়ুয়ার থেকে এর চেয়ে বেশিই আশা করেছিল সবাই।

অনুরাগীদের মতে, রাধিকা একজন শিক্ষিত মেয়ে যে, কিনা আবার ডাক্তার। সে কীভাবে এইসব মুখ বুজে সহ্য করে যাচ্ছে? এতে সমাজের কাছে কী বার্তা পৌঁছাবে? প্রশ্ন তুলেছে দর্শকমহল। রাধিকা নাকি তার বাবাকে বাঁচানোর জন্য প্রমাণ জোগাড় করতে এসেছে এখানে! তার জন্য ধারাবাহিকটিকে এভাবে কূটকচালিতে ভরে দেওয়ার কী দরকার ছিল? প্রশ্ন করেছে লীনা গাঙ্গুলীকেও।

নেটিজেনদের দাবি, কেন লেখিকা সবসময় মেয়েদের অত্যাচারিত, নিপীড়িত দেখান?অত্যাচার দেখানো ছাড়া কি টিআরপি বাড়বে না? কতদিন আর এরকম ভাবনা থেকে এরকম নীচু মানের বাংলা সিরিয়াল তৈরি হবে? যুগ বদলালেও, বাংলা ধারাবাহিকের গল্প বদলানো না। এমনটাই দাবি নেট নাগরিকদের।

Related Articles

Back to top button