অন্যান্যসেরা খবর

ভারতে বাড়ি ভাড়ার চুক্তি কখনই ১১ মাসের বেশি হয় না কেন? এর পিছনে রয়েছে এক বিশেষ সুবিধা, আজই জেনে রাখুন

ভাড়া বাড়ির নিয়ম-কানুন প্রায়ই হাজারো ঝামেলা ও দ্বিধার জন্ম দেয়। আর এই কারণেই ভাড়াটিয়া আর বাড়ি মালিকের মধ্যে করা হয় কিছু আইনি চুক্তি। আর এই আইনি চুক্তিপত্র বলতে আমরা বুঝি দুই পক্ষের সই সাবুদ করা একটা কাগজ। নানান ধরনের শর্তাবলীর পাশাপাশি ভারতে বাড়ি ভাড়ার একটি অন্যতম শর্ত হলো যে, এই বাড়ি ভাড়ার মেয়াদ থাকবে ১১ মাস অবদিই।

কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন কি যে, বাড়ির মালিক বা যিনি ভাড়া থাকবেন তারা বাড়ি ভাড়ার মেয়াদ ১১ মাসের বেশি দীর্ঘায়িত করতে চান না কেন? আসলে এর পেছনেও রয়েছে কিছু বিশেষ কারণ। এই চুক্তি করা হয় দেশের আইন মেনেই, যে আইন আসলে বাড়ি মালিকের চেয়ে ভাড়াটের ক্ষেত্রেই বেশি সহৃদয়।

প্রসঙ্গত, ভারতে যখনই কোনো ব্যক্তি নিজের বাড়ি ভাড়া দেন তখন তিনি একটি কাগজে যাবতীয় শর্তাবলী লিখে ভাড়াটিয়াকে দিয়ে সই করিয়ে নিয়ে আসেন। যার একটা কপি থাকে তার নিজের কাছে এবং একটা কপি দেন ভাড়াটিয়াকে। এই চুক্তিতে দুই পক্ষের কর্তব্য, অধিকার এবং দু পক্ষের শর্তের কথা বিস্তারিত লেখা থাকে‌। মনে রাখবেন যে চুক্তিই আপনি করুন না-কেন, তা খেলাপ করলে, অন্য পক্ষের একশো শতাংশ অধিকার থাকবে আদালতের দরজায় কড়া নাড়ার।

কিন্তু এই চুক্তি যত নিখুঁতই হোক না কেন তার মেয়াদ কোনোভাবেই ১১ মাসের বেশি হতে পারে না। প্রয়োজন পড়লে তা আবার পুনর্নবীকরণ করা হবে কিন্তু একবারে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হবেনা। আসলে আমাদের দেশের আইনশৃঙ্খলার এতো বেশি মারপ্যাঁচ যে, ভাড়াটিয়াকে যাতে সেই মারপ্যাঁচে না পড়তে হয় সেই জন্যই এই ১১ মাসের চুক্তি।

আসলে বাড়ি ভাড়ার চুক্তি যখনই ১১ মাস অতিক্রম করে ১২ হবে তখনই ভাড়াটিয়া এবং বাড়িওয়ালা, উভয়ের জন্যই প্রক্রিয়াটিকে জটিল হয়ে উঠবে, বহু সংখ্যক আইন প্রয়োগযোগ্য হবে৷ এছাড়া এর ফলে ভাড়াটিয়াকে কোনো ট্যাক্স প্রদান করতেও হয়না। ঘর ভাড়ার মেয়াদ ১১ মাস রাখার পেছনে এটি অন্যতম প্রধান কারণ।

এক সংবাদ সংস্থায় প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, বাড়ি ভাড়ার চুক্তি ১১ মাসের বেশি হলে তা ভারতীয় দণ্ডবিধির রেজিস্ট্রেশন আইনের (১৯০৮) ১৭ নম্বর ধারায় নথিভুক্ত করতে হবে। ১২ মাসের কম হলে সেই নিয়ম এড়ানো যাবে। নথীভুক্ত করলে ভাড়াটে কতদিন ভাড়া নিয়েছেন এবং কত টাকা ভাড়া দিচ্ছেন তার উপর ভিত্তি করে ট্যাক্স দিতে বাধ্য থাকবেন। ১১ মাসের কম চুক্তিতে সেই ঝামেলা থাকেনা। এছাড়াও চুক্তি অনুসারে এই ১১ মাসের মধ্যে বাড়ির মালিক যখন তখন নিজের ইচ্ছে মতো ভাড়াটিয়াকে উচ্ছেদ করতে পারবেননা। অর্থাৎ ১১ মাসের চুক্তিতে ভাড়াটিয়া এবং বাড়ি মালিক উভয়পক্ষই নির্ঝঞ্ঝাট জীবনযাপন করতে পারেন।

Related Articles

Back to top button