অন্যান্যসেরা খবর

মেট্রোয় পাশের সিটে বসা থেকে আলাপ, সেই সম্পর্ক থেকে বিয়ে! এই জুটির গল্প ঠিক রূপকথার মত

প্রেম, বড়ই পবিত্র এ বস্ত। সৃষ্টির নির্মাতা প্রজাপতি ব্রহ্মা মানব জাতিকে তৈরি করার সময় পুরুষ ও স্ত্রী দুইয়ের মধ্যে একে অপরের প্রতি অগাধ প্রেম গেঁথে দেন। তাই ভাগ্যের ফেরে কার যে কখন ভালো লেগে যাবে বোঝা খুবই মুশকিল। কিন্তু আজ যে প্রেমের কাহিনী শোনাবো আপনাদের তা হার মানাবে সিনেমার গল্পকেও।

লাভ অ্যাট ফার্স্ট সাইট এর কথা আমরা সবাই শুনেছি, কিশোর বয়সে একটু আধটু লাভ অ্যাট ফার্স্ট সাইট এর চক্করে আমরা সবাই হয়তো পড়েছি। কিন্তু তাই বলে তার সাথে প্রেম তারপর বিয়ে! এযেন বলিউডের পরবর্তী মুভির স্ক্রিপ্ট। কিন্তু আজ যে গল্প আপনাদের বলতে চলেছি সেটা সিনেমার চেয়ে কম কিছু নয়।

কথা হচ্ছে সুদূর দক্ষিণ আমেরিকার দেশ হাইতির বংশোদ্ভুত এক আমেরিকা প্রবাসী তরুণী অ্যান্ডি নেদারল্যান্ডে নিজের পড়াশোনা শেষ করে ঘুরতে বেরিয়েছিলেন। আর সেই সময়ই প্যারিসে নিজের এক বন্ধুর বাড়িতে ঘুরতে যান তিনি। মেট্রোয় চেপে ঘুরতে বেরিয়েই প্রেমে পড়ে যান তিনি। বিপরীত দিকের সিটে বসে থাকা এক তরুণকে ভালো লেগে যায় তার।

অ্যান্ডি জানান যে, তার পাশে রাখা ব্যগটিকে সিট থেকে নীচে নামিয়ে রাখেন তিনি। আর তখনই উল্টো দিকের তরুণ যুবক এসে তার পাশে বসেন আর দুজনের মধ্যে কথা শুরু হয়। কথায় কথায় বুঝতে পারেন উল্টো দিকের তরুণ আফ্রিকার বাসিন্দা। এরপর একে অপরের নাম্বার এক্সচেঞ্জের পর শুরু হয় তাদের বন্ধুত্তের পর্ব।

তবে বেশিদিন বন্ধু হয়ে থাকতে পারেননি তারা। কথা শুরু হওয়ায় পর ধীরে ধীরে দুজনে একে অপরের আরো অন্তরঙ্গ হয়ে পড়েন আর শেষে একে অপরকে নিজেদের বাহুডোরে সঁপে দিয়ে বিয়ে করে নেন দুজনে। তাদের এই প্রেম যেকোনো সিনেমার গল্পের চেয়ে কম কিছু নয়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে এখন রীতিমত হট টপিক হয়ে উঠেছে এই দুজনার বিয়ে। রূপকথার গল্পের মতো তারাও একে অপরকে হঠাতই খুঁজে বের করেন আর শেষ পর্যন্ত একে অপরকে ভালোবেসে বিয়েও করেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে মানুষ এই নব দম্পতিকে আশীর্বাদ এবং ভালোবাসায় ভরিয়ে দিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button