Veteran actor Biplab Chatterjee reveals what Bengali Film industry thinks about him

Kakali Chatterjee

‘ইন্ডাস্ট্রি বলে দিয়েছে আমি অভিনয় পারি না’, জন্মদিনে আক্ষেপের সুর বিপ্লব চট্টোপাধ্যায়ের গলায়!

নিউজশর্ট ডেস্কঃ এককালীন বাংলা সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি (Tollywood Industry) দাপিয়েছিলেন তিনি। বিশের দশকে খলনায়কের চরিত্রে বিপ্লব চট্টোপাধ্যায়কে (Biplab Chatterjee) ছাড়া অন্য কাউকে নেওয়ার কথা ভাবতেই পারতেন না পরিচালকেরা। তাঁর অভিনয় দক্ষতায় হিট হয়েছে একের পর এক সিনেমা। মন কেড়েছেন দর্শকদের। কিন্তু সেই প্রবীণ অভিনেতাই আজ কোথায়?

   

এখনও পর্যন্ত বিপ্লবের শেষ কাজ, সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের সিরিজ় ‘দুর্গ রহস্য’। বড় পর্দায় তাঁর শেষ কাজ পাভেল পরিচালিত ‘অসুর’। ছবিতে বিপ্লবের দেখা মিলেছিল নুসরত জাহানের ‘বাবা’র চরিত্রে। দর্শক এবং সমালোচকদের মতে, অন্য ধরনের চরিত্রেও যে তিনি সাবলীল তা নিজেই প্রমাণ করেছেন বর্ষীয়ান অভিনেতা।

Biplab Chtterjee

কেন আর পর্দায় দেখা মেলে না বিপ্লব চট্টোপাধ্যায়ের?

বিপ্লব চট্টোপাধ্যায়ের ভক্তদের মনে একটাই প্রশ্ন কে অভিনয় করেন না তিনি? সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে অভিনেতা নিজেই জানালেন সে কথা। তিনি বলেন, “আপনি, আমি বা দর্শক বলার কে? ইন্ডাস্ট্রির সকলে যখন বলে দিয়েছেন আমি অভিনয় পারি না, তখন পারি না! এর বাইরে কোনও কথা নেই।”এরপর আক্ষেপের সঙ্গে তিনি জানালেন, কাজ সংক্রান্ত কোনও ফোন আর আসে না তাঁর কাছে। তিনি বললেন, “কেনই বা আসবে? গোটা ইন্ডাস্ট্রি জানে আমি আর অভিনয় করতে পারি না। যে অভিনয় করতে পারে না তাকে কি কেউ ডাকে?”

Biplab Chatterjee

আরও পড়ুনঃ কেউ ২ তো কেউ পায় ৪ লাখ! বাংলা সিরিয়ালের সবচেয়ে বেশ পারিশ্রমিক পান কোন অভিনেত্রী জানেন?

ঠিক কোন চরিত্রে তাঁর অভিনয় করার ইচ্ছে আছে?

ওটিটিতেও কাজ কারার সুযোগ পেলে তিনি করবেন বলে জানান। বর্ষীয়ান অভিনেতা বলেন, “আমার কাছে সব মাধ্যমের সমান গুরুত্ব রয়েছে। কারণ, প্রত্যেক মাধ্যমেই অভিনয় করতে হয়।”তবে আর খলনায়কের ভূমিকায় অভিনয় করবেন না তিনি। অভিনেতা জানালেন, ‘প্রহার’ ছবিতে নানা পটেকর যে চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন তেমন কোনও চরিত্রে অভিনয় করার ইচ্ছে রয়েছে। এমন কোনও চরিত্র যদি পান, তা হলেই অভিনয় করবেন। না হলে ইন্ডাস্ট্রি থেকে দূরেই থাকবেন।

প্রসঙ্গত, বিগত কিছুদিন আগে ৭৭ তম জন্মদিন পাড় করেছেন তিনি। এ বছরের জন্মদিনে তেমন বিশেষ আয়োজন ছিল না। জানালেন স্ত্রী প্রতি দিন যা রাঁধেন তেমনই রেঁধেছেন। বিশেষ আয়োজন বলতে ছিল ইলিশ মাছ।