বিনোদনসেরা খবর

‘ওয়েস্টার্নকে কপি করতে গিয়ে বলিউড শেষ, ‘কানতারা’র মত ছবি ওদের কম্ম নয়’, বিষ্ফোরক মন্তব্য রিষব শেঠির

ভারতীয় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে চলছে দক্ষিণী ছবির দাপট। একটার পর একটা নতুন নতুন মাইলস্টোন তৈরি করে চলেছে এই ইন্ডাস্ট্রি। সদ্যই এই সাফল্যের মুকুটে নয়া পালক যোগ করেছে ‘কানতারা’ (Kantara)। রিষভ শেট্টি (Rishab Shetty) পরিচালিত এবং অভিনীত স্বল্প বাজেটের এই কন্নড় ছবিটি আলোড়ন সৃষ্টি করেছে গোটা দেশে।

সো কলড স্টারডমের ছিঁটেফোঁটাও নেই এই ছবিতে। নামমাত্র বাজেট নিয়ে এবং পরিপক্ক গল্পের জোরে আচ্ছন্ন করে ফেলেছে গোটা দর্শকমহলকে। দক্ষিণ তো বটেই এমনকি তাবড় তাবড় বলিউড তারকারাও বলতে বাধ্য হয়েছে, ‘ফিল্ম হো তো অ্যায়সি’। কুইন কঙ্গনা তো ছবির প্রশংসায় পঞ্চমুখ। অভিনেত্রীর মতে, এই রকম ছবি বানানোর ক্ষমতা বলিউডের নেই।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই রিষভ শেঠি পরিচালিত এই ছবিটির মোট তিনটি সংস্করণ মুক্তি পেয়েছে। তেলেগু, মালায়লাম এবং হিন্দিতে দেখা যাচ্ছে ছবিটি। মুক্তির পর থেকে সাড়াও সাড়াও মিলেছে দেখার মতো। এইরকম ছোট বাজেটের একটা ছবিও যে এতোটা আলোড়ন সৃষ্টি করতে পারে তা বর্তমান বলিউডের ভাবনারও অতীত।

গত ১৪ অক্টোবর মুক্তির পর থেকে মাত্র দু সপ্তাহের মধ্যেই ছবির কালেকশন প্রায় ৪০ কোটি টাকা। এখানে বলে রাখি, ‘কানতারা’ ছবির টিকিটের দামও কিন্তু নামমাত্র। এমতাবস্থায় বর্তমানের রিমেক ট্রেন্ডের কথা মাথায় রেখে রিষভকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, কানতারার হিন্দি রিমেকের কথা কি তিনি ভাবছেন?

জবাবে তিনি যা বলেন তা বি-টাউনকে চমকে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। পরিচালকের মতে, ‘কানতারার হিন্দি রিমেক হওয়া উচিত নয়। ছবিটিকে এমনিই হিন্দি ভাষায় ডাব করে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। নতুন করে রিমেক বানানোর আর প্রয়োজন নেই।’ পাশাপাশি তাকে আরো জিজ্ঞেস করা হয়, যদি ছবিটি কখনও হিন্দিতে রিমেক করার কথা ভাবাও হয়, সেক্ষেত্রে কোন কোন তারকাকে কাস্ট করতে চাইবেন তিনি?

এই প্রশ্নের উত্তরে কোনো রাখঢাক ছাড়াই স্পষ্ট কথায় উত্তর দেন তিনি। রিষভ জানান, ‘কোনো বলিউড অভিনেতারই ক্ষমতা নেই তার চরিত্রটি করার। কারণ এটি তার গ্রামের গল্প, তার ধর্মের গল্প। যারা নিজেদের শিকড় নিয়েই অজ্ঞাত তারা কীভাবে এই ছবি করবে? তিনি আরো বলেন, ‘আমরা অডিয়েন্সের জন্য ছবি তৈরি করি, নিজেদের জন্য নয়। বলিউড আজকাল এতো বেশি ওয়েস্টার্ন ঘেঁষা হয়ে গেছে যে, দর্শকদের সেন্টিমেন্টের কথা ভুলে গেছে।’

রিষভের মতে, ‘সবার আগে নিজের অস্তিত্ব নিয়ে জ্ঞান থাকা জরুরি। আগে নিজের সংস্কৃতি, ধর্ম তারপরে ফিল্মি দুনিয়া। এখন বলিউড পোশাক আসাক থেকে শুরু করে সবকিছুতেই হলিউডকে কপি করতে চাইছে। মানুষ চায় নিজেদের সংস্কৃতি বিশ্বদরবারে প্রতিষ্ঠিত হোক। সেখানে বলিউডের কপি করা ছবি দেখবে কেন? গোটা ইন্ডাস্ট্রির দিকেই পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন তিনি।

Related Articles

Back to top button